ইউটিউব থেকে ইনকাম করবেন কিভাবে? বিস্তারিত এখানে!

0
1978
ইউটিউব থেকে ইনকাম

আজকের টপিক হলো – ইউটিউব থেকে ইনকাম! আপনি কি অনলাইন থেকে ইনকাম করতে চাচ্ছেন? কিন্তু পারছেন না! কেন পারছেননা এসব নিয়ে কখনো কি চিন্তা করেছেন? আমরা আমদের নেগেটিভ দিক গুলো নিয়ে ভাবিনা তাই আমাদের সাকসেস ও আসেনা।

আজকে আমি অনলানে ইনকাম করা যায় এমন একটি ভালো প্লাটফর্ম নিয়ে আলোচনা করবো। যদি ইউটিউব থেকে ইনকাম করা নিয়ে জেনে থাকেন তবুও আর্টিকেলটি পড়ুন,হয়তো নতুন কিছু শিখতে পারবেন। যদি ইউটিউব নিয়ে আপনার তেমন ধারনা না থাকে তাহলে মনোযোগ দিয়ে পুরো আর্টিকেলের সাথেই থাকুন।

ফিউচার নেট ডট ক্লাব কি? বিস্তারিত এখানে…

ইউটিউব থেকে ইনকাম করতে চাচ্ছেন? আপনি কিভাবে ইউজ করতেছেন ইউটিউব মাধ্যমকে?

হ্যা, আপনি ইউটিউব কে হয়তো শুধু মাত্র বিনোদনের জন্যই ইউজ করে থাকেন। সময় পেলেই গান,মুভি,খেলার আপডেট এসব দেখেই ইউটিউবে সময় কাটান। একটা সময় আমার কাছে ইউটিউব মানে বিনোদন মনে হতো।

ইউটিউব থেকে যে ইনকাম করা যায় এইটা আমি সত্যিই জানতাম না। যখন জানতে পারি তখন নিজেকে বোকা মনে হয়েছিলো,মনে হয়েছিলো – এই ব্যাপারটা আমি এত দিন পরে জানলাম!

আমি জানি আপনি ইউটিউবের ইনকাম সম্পর্কে জানেন। হয়তো কিভাবে বা কোন পদ্দ্বতিতে কাজ করলে আপনি ভালো পরিমান একটা এমাউন্ট জেনারেট করতে পারবেন সেটা জানেন না।

আমি চেষ্টা করবো – আপনি যেন আপনার কাজের ভালো পদ্ধতি গুলো আমার আর্টিকেল পড়ে সাজাতে পারেন। আমি চাই আপনিও ইউটিউবার হয়ে নিজেকে সাকসেসফুল ইউটিউবারদের তালিকায় নিয়ে আসুন।

 

ইউটিউবার হওয়ার জন্য – কি কি শিখতে হবে?

কিছু নলেজ থাকতেই হবে যদি আপনি ইউটিউবার হিসেবে নিজেকে দেখতে চান। যেই নলেজ গুলো ইউটিউবার হওয়ার জন্য সহায়ক ভুমিকা পালন করে থাকে –

  1. নিজের মাইন্ডসেট ঠিক রাখা
  2. যে কোন পার্টিকুলার বিষয়ের উপর খুব ভালো নলেজ থাকা

নিজের মাইন্ডসেট ঠিক রাখা ঃ

আপনাকে সাকসেস হতে হলে সবার আগে আপনার মাইন্ড সেট ঠিক রেখে কাজ করে যেতে হবে। আপনি কোন একটা কাজ জানেন। ঐ জানা কাজ থেকে সাকসেসফুল আউটফুট নিয়ে আসতে চাইলে, আপনার মাইন্ডসেট ঠিক রাখাটা অনেক গুরুত্বপূর্ন।

আমি একটু বুঝিয়ে বলছি – ধরুন আপনি খুব ভালো ফটোশুট করতে পারেন অর্থাৎ আপনি খুব ভালো ছবি তুলতে পারেন। এখন আপনি যদি আপনার এই নলেজকে সাকসেস ফুল ফটোশফারদের সাথে দেখতে চান, তাহলে আপনাকে ঠিক করে নিতে হবে যে – আপনি একদিন একজন সফল ফটোশফার হবেন।

যদি এমন হয় – কিছুদিন ফটোশুট করলেন, আবার কিছুদিন পরে অন্য কোন ট্রেকে চলে গেলেন, তাহলে সাকসেস আসবেনা। মাইন্ড সেট ব্যাপারটা সত্যিই যে কোন কাজে সাকসেস হওয়ার জন্য অনেক বেশি জরুরী, আর তাই আমি সবার প্রথমে মাইন্ড সেট নিয়ে বললাম।

বেশির ভাগ আনসাকসেসফুল পারসোন তাদের মাইন্ড সেট ঠিক রাখেনা । আবার বেশির ভাগ সাকসেসফুল পারসোন তাদের মাইন্ডসেটের জন্যই আজ তাঁরা সাকসেসফুল।

বেস্ট ৫ টি ক্রোম এক্সটেনশন – Info Here…

যে কোন পার্টিকুলার বিষয়ের উপর খুব ভালো নলেজ থাকা ঃ

আপনি যেকোন প্লাটফর্মে ভালো কিছু করতে চাইলে আপনাকে সবার প্রথমে ঐ প্লাটফর্ম রিলেটেড কিছু কাজ খুব ভালো ভাবে জেনে নিতে হবে। আপনি যদি খুব ভালো ফটোশপ ডিজাইনার হয়ে থাকেন তাহলে ইউটিউবে আপনি ফটোশপ রিলেটেড ভিডিও দিয়ে নিজেকে প্রমান করতে পারবেন। অর্থাৎ আপনাকে কাজ আগে শিখে নিতে হবে যে কোন পার্টিকুলার বিষয়ে।

উপরের দুইটা বিষয় যদি আপনি ঠিক করে নিতে পারেন তাহলে আপনিও হতে পারেন একজন সফল ইউটিউবার। উপরের দুইটা বিষয়ের পর আরো কিছু বিষয় আপনার কাজের ক্ষেত্রে জেনে রাখা দরকার –

ভিডিও এডিটিং জানা ঃ

আবার ভিডিও এডিটিং ও জানতে হবে? এত ভয়ের কিছুনা। ভিডিও এডিটিং সম্পর্কে মোটামুটি বেসিক নলেজ থাকলেই হবে। খুব ভালো প্রফেশনাল ইডিটর হতে হবেনা। আপনার ভিডিও গুলো এডিট করার জন্য যতটুল নলেজ থাকা দরকার, ততটুকু নলেজ শিখে নেওয়া অনেক লং প্রসেস না।

আপনি ১ সাপ্তাহের মধ্যে ইউটিউবে আপলোড দেওয়া মত এডিটিং শিখে নিতে পারবেন। এডিটিং শিখার জন্য আমি কেমতাশিয়া সফটওয়ারটি সাজেস্ট করব। নতুন অবস্থায় কেমতাসিয়াতে এডিটিং শিখাটা অনেক সহজ ।

কেমতাসিয়ার ইউটিউব অফিশিয়াল চ্যানেল থেকেই আপনি খুব ইজিলি শিখে নিতে পারবেন যে, কিভাবে কেমতাসিয়া দিয়ে খুব সহজে একটি ভিডিও এডিং করা যায়।

সিম্পল এস ইয়ও জানা ঃ

আপনি খুব ভালো ডিজাইন করতে পারেন। এবং সেই ডিজাইন নিয়ে খুব ভালো ভালো ভিডিও তৈরি করতেও পারেন। ভিডিও এডিটিং ও এখন পারেন। এই কাজ গুলো যখন সব পারবেন, তখন আপনার ভিডিও/টিউটোরিলটিকে আপলোড দেওয়ার আগে কিছু অফপেইজ এস ইউ এবং আপলোড দেওয়ার পরে কিছু অনপেইজ এস ইয়ও করে নিতে হবে।

এতে আপনার টিউটোরিয়ালটি খুব ভালো রেংক করবে। রেঙ্ক করার জন্য আপনার টিউটোরিয়ালটি মানুষ খুব বেশি পরিমানে দেখবে। আর এভাবেই আপনার ইউটিউব চ্যানেলটি গ্রো করবে এবং একটা সময় আপনার চ্যানেল থেকে ইনকাম জেনারেট হবে।

ইউটিউবের ভিডিওর জন্য যতটুক ইস ইয়ও জানা দরকার ততটুক ইস ইয়ওর কাজ শিখে নিবেন। ইউটিউব ইস ইয়ও নিয়ে আমার আর্টিকেলটি পড়ে আসতে পারেন এখান থেকে।

নিয়মিত কাজে লেগে থাকতেই হবেঃ

ইউটিউব থেকে আর্নিং করার জন্য উপরের নলেজ গুলো গেইন করা আপনার জন্য অনেক পজিটিব ব্যাপার। উপরের নলেজ গুলো কেউ একদিনে শিখে নিতে পারবেনা। তাই পরিশ্রমের বিকল্প নেই।

আমি আপনাকে এমন কিছু বলে আশ্বাস দিতে পারবোনা যে – পরিশ্রম ছাড়া আপনি হাজার হাজার $ অনলাইন থেকে ইনকাম করতে পারবেন। আপনি এমন অনেক আর্টিকেল বা টিউটোরিয়াল দেখতেই পারেন যেখানে বিনা পরিশ্রমে ইনকামের মাধ্যম দেখায়। বিশ্বাস করুন সেই মাধ্যম গুলোর ফিউচার নেই। যেকোন সময় উদাও হয়ে যেতে পারে।

তাই এমন কিছু শিখুন। যেখান থেকে আপনার ভালো পরিমান ইনকাম হবে সাথে আপনার ফিউচারে পজিটিব বেলু দিবে। আপনি চিন্তা করে দেখুন যদি অনেক পরিশ্রম করে একটা ইউটিউব চ্যানেল আপনি দাঁড় করাতে পারেন তাহলে সেই চ্যানেল থেকে আপনার ইনকাম আসতেই থাকবে।

অর্থাৎ পেসিব ইনকাম যদি করতে চান তাহলে ইউটিউব নিয়ে ভাবতে পারেন। পেসিব ইনকামের জন্য ইউটিব খুব ভালো একটি সচ্ছ মাধ্যম।

নিজের নলেজ গুলোকে ইউটিউব চ্যানেল খুলে টিউটোরিয়াল আকারে সবার সামনে তুলে দরুন এবং হাজার হাজার $ ইউটিউব থেকে জেনারেট করুন । আবারো বলছি ইউটিউবে একদিনে সাকসেস আসবেনা। প্রচুর পরিশমের পরে সফলতা আসবেই।

ইউটিউব এর ইনকামটা কিভাবে জেনারেট হয়, এবং কিভাবে আপনি টাকা নিজ হাতে নিয়ে আসবে। এই টপিক নিয়ে সামনে আর্টিকেল পাবেন। আমার এই সাইটের আপডেট আর্টিকেলের দিকে নজর রাখবেন। তাহলেই পেয়ে যাবেন।

FAQ

আজকের টপিক – ইউটিউব থেকে ইনকাম এখানেই শেষ করলাম! অনেক কথা বলেছি। ভুল হলে ধরিয়ে দিবেন। আর্টিকেল টি ভালো লাগলে আপনার ফ্রেন্ড দের সাথে শেয়ার করবেন। কোন প্রশ্ন থাকলে কমেন্ট করে জানাবেন।

ধন্যবাদ !!

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here